‘বড় লোকের বিটি লো’ গানের জগাখিচুড়ি

মোট দেখেছে : 59
প্রসারিত করো ছোট করা পরবর্তীতে পড়ুন ছাপা

অনলাইন ডেস্কঃ রিমিক্সের পর আবার রিমিক্স হলো পশ্চিমবঙ্গের জনপ্রিয় আঞ্চলিক গান ‘বড় লোকের বিটি লো’। পুরোনো ভিডিও চিত্রের সঙ্গে নতুন ভিডিও সম্পাদনা করে ভিন্ন উপস্থাপনায় ছাড়া হয়েছে ইউটিউবে। গত কয়েক দিনে অনেকবার দেখা হয়েছে এ ভিডিও। নানান মন্তব্য সেখানে। প্রশংসার পাশাপাশি সমালোচনাও দেখা গেছে। এমনও বলা হয়েছে, এ যেন আঞ্চলিক গান ‘বড় লোকের বিটি লো’র জগাখিচুড়ি।

‘খালি মাঠে গোল’ দেওয়ার মতোই ছিল আলোচিত ‘গেন্দা ফুল’ গানের রিমিক্স উপস্থিতি। মার্চ মাসে করোনার ছোবলে থমকে ছিল বলিউড দুনিয়া। তখন কোনো কাজ ছিল না, ছিল না নতুন ছবির মুক্তি। তারকারা ঘরে অলস সময় পার করছিলেন। করোনায় থমকে যাওয়া সেই সময়ে ইউটিউব তোলপাড় হয় জ্যাকুলিনের নাচে। ‘বড় লোকের বিটি লো, লম্বা লম্বা চুল, এমন মাথায় বেঁধে দেব লাল গেন্দা ফুল’—এমন কথায় শুরু হয় গানটি। ‘গেন্দা ফুল’ শিরোনামের গানটি ২৫ মার্চ সনি মিউজিক ইন্ডিয়ার ইউটিউব সাইটে মুক্তি পায়। স্নেহা শেট্টি কোহলির পরিচালনায় এ গান মুক্তি পাওয়ার পরই ভাইরাল হয়। কেবল সনি মিউজিক ইন্ডিয়ার ইউটিউব চ্যানেল থেকেই সোমবার সন্ধ্যা পর্যন্ত গানটি দেখা হয়েছে ৫৯ কোটি ১৪ লাখ ৯৭ হাজারের বেশি বার। শুরুতে গানের মূল শিল্পী রতন কাহারকে কৃতিত্ব না দিয়ে তাঁরই লেখা বাংলা জনপ্রিয় আঞ্চলিক গান ‘বড় লোকের বিটি লো’ নিজের ‘গেন্দা ফুল’ অ্যালবামে ব্যবহার করেন বাদশা। শুরু থেকে এ নিয়ে চরম বিতর্ক তৈরি হয়। সে সময় বাংলার শিল্পীমহল ও সংবাদমাধ্যমের কড়া নিন্দার মুখে পড়তে হয় বাদশাকে। পরবর্তীকালে মিউজিক ভিডিওতে বাদশা অবশ্য রতন কাহারের নাম উল্লেখ করেছিলেন।

এবার ভারতের পরিচালক অরিন্দম শীলের হাত ধরে নতুন রূপে মুক্তি পেল ‘গেন্দা ফুল’। গানটির নতুন সংগীতায়োজন করেছেন পশ্চিমবঙ্গের সুপরিচিত তবলাবাদক বিক্রম ঘোষ।  তবলার ছন্দে গানকে নতুন করে সাজিয়েছেন বিক্রম। সনি মিউজিকের প্রযোজনায় এ ভিডিও চিত্রের শুরুতে দেখা যায় স্বয়ং লোকশিল্পী রতন কাহারকে। তাঁর সঙ্গে কণ্ঠ মিলিয়েছেন জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত গায়িকা ইমন চক্রবর্তী। সংগীত চিত্রে মডেল হিসেবে অংশ নিয়েছেন নৃত্যশিল্পী ও অভিনেত্রী দেবলীনা। জানা গেছে, সিউড়ি থেকে এসে ভিডিওর শুটিংয়ে অংশ নিয়েছেন রতন কাহার। গান গাওয়ার পাশাপাশি অভিনয় করেছেন ইমন চক্রবর্তী। বাদশা ও জ্যাকুলিন ফার্নান্দেজের কিছু দৃশ্যও গানে রাখা হয়েছে। নতুন–পুরোনো ভিডিও নিয়ে পরিবেশন করেছেন পরিচালক অরিন্দম শীল। ১০ অক্টোবর একই ইউটিউব চ্যানেলে মুক্তির পর এ গানের ভিউও ছাড়িয়ে গেছে ২৮ লাখ। প্রসঙ্গত, ‘বড় লোকের বিটি লো লম্বা লম্বা চুল, এমন মাথায় বেঁধে দেব লাল গেন্দা ফুল’—রতন কাহারের এই গান সত্তরের দশকে রেকর্ড করেছিলেন স্বপ্ন চক্রবর্তী। তারপর থেকে সেটি আজও সমান জনপ্রিয়। বাংলাদেশেও চলচ্চিত্রসহ নানা মাধ্যমে ব্যবহৃত হয়েছে গানটি। মার্চ মাসে প্রথম আলোকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে নতুন করে গানটি ব্যবহার বা রিমিক্স করার ব্যাপারে কোনো অনুমতি নেওয়া হয়নি বলে বলেছিলেন গীতিকবি রতন কাহার। সে সময় স্মৃতিচারণা করে রতন কাহার জানান, গানটি তিনি ৪৮ বছর আগে তৈরি করেন।  তৈরির পর তিনি নিজেই গানটি আকাশবাণীতে গেয়েছিলেন। সে সময় গানটি অবশ্য জনপ্রিয়তা পায়নি বলেও জানান রতন কাহার। সেই সময়ের কথা মনে করে তিনি বলেন, ‘আমার মামার একটি গানের দল ছিল, সেখানে এই গান সবাই মিলে গাইতাম। তখন স্বপ্না চক্রবর্তী নামের একজন গানটি লিখে নেন। আর ১৯৭৬ সালের দিকে প্রথমবারের মতো তিনি “বড় লোকের বিটি লো” গানটি রেকর্ড করলে ছড়িয়ে যায় সবার মুখে মুখে। সেদিনই আমি এই গান নিয়ে দুঃখ পাই। কারণ, গানে গীতিকার হিসেবে আমার নাম উল্লেখ না করে “প্রচলিত গান” লেখা হয়! আমি প্রতিবাদ করেছিলাম। তখন প্রতিবাদ করেছিলাম। কারণ, দৌড়ানোর মতো সময় ছিল। রেকর্ডিং যাঁরা করেছিলেন, তাঁদের কাছে গিয়েছিলাম। তখন আমার কথা তাঁরা আমলে নেননি। আমাকে বলেছিলেন যেন “প্রচলিত গান” বিষয়টি মেনে নিই। ওটাই ছিল “বড় লোকের বিটি লো” নিয়ে প্রথম কষ্ট পাওয়া।’ 

সূত্রঃ প্রথম আলো 

আরো দেখুন

সাম্প্রতিক ভিডিওগুলি